আমির হোসেন, ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ
“ক্ষুধার রাজ্যে পৃথিবী-গদ্যময়। পূর্ণিমার চাঁদ যেন ঝলসানো রুটি।” কবি সুকান্তের কথাটা এই রমজান মাসে বেশিই ভাবায়। এই করোনা ভাইরাস আর লকডাউন যেনো চাঁদকেও খেতে বাধ্য করছে অসহায়দের। রমজান মাসে দরিদ্র পরিবারের রোজাদার ভোর সাড়ে ৪টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত রোজা রেখে পরের দিন সেহেরীতে কি খাবে সেই চিন্তা করে। এর থেকে করুণ অবস্থা আর কি হতে পারে ? এছাড়াও লক ডাউনে সারা দেশের হোটেল রেস্টুরেন্ট বন্ধ থাকায় কর্মহীন ও গৃহহীন অসহায় ভিক্ষুক-ভবঘুরে মানুষজন যখন খাদ্যভাবে অসহায় জীবন যাপন করে তখন তাঁদের খাদ্য সহায়তা দেয়ার উদ্যোগ নেয় রক্ত কণিকা ফাউন্ডেশন (আরকেএফ) এবং দূরন্ত ফাউন্ডেশন। রক্ত কণিকা ফাউন্ডেশন (আরকেএফ) এর উদ্যোগে সংগঠনের সদস্যদের কাছ থেকে চাঁদা তুলে এবং সহৃদয়বান মানবিক ব্যক্তিদের সহায়তায় খিচুরি রান্না করে প্যাকেটজাত করে রক্ত কণিকা ফাউন্ডেশনের সদস্যা আলভী, শাওন, রবিউল, মারুফ সাইকেল নিয়ে রাস্তায় ঘুরে ঘুরে অসহায়দের মুখে তুলে দিচ্ছে তৈরীকৃত খাবার। প্যাকেটে রাতের খাবার পেয়ে অসহায়দের মুখে মুক্তা ঝড়ানোর মতো প্রাণ খোলা হাসিতে মনটা ভরে যায় দাতা ও সদস্যদের। প্রতিরাতে শহরের বিভিন্ন প্রান্ত ঘুরে গৃহহীন ছিন্নমূল ও পথের পাশে শুয়ে মানুষকে এ খাদ্য সহায়তা দেয়া হচ্ছে। ঝালকাঠির ন্যায় সারাদেশে এ কর্মসূচী পালন করছে (আরকেএফ)। আরকেএফ ঝালকাঠি টিম এর সদস্যরা জানান, প্রতিবছরই ইফতার শেষে তারাবিহ নামাজ পড়ে বাসায় ফেরার পথে রাস্তার
পাশে অনেক মানুষকে অভক্ত দেখা যায়। গতবছরের লকডাউনের সময় অনেক বিত্তবানরা অসহায়দের খাদ্য সহায়তা দিতো। কিন্তু গতবছরের তুলনায় এবছরের খাদ্য সহায়তা খুবই নগন্য। তাই অভুক্তদের মুখে অন্ন (খাবার) তুলে দিতে উদ্যোগ নেয় মুমুর্ষ রোগীদের জীবন বাঁচাতে রক্তদানকারী বেসরকারী স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন রক্তকণিকা ফাউন্ডেশন (আরকেএফ)। এবছর ১৪এপ্রিল প্রথম রমজান থেকে তৈরী খাদ্য বিতরণের কর্মসূচী শুরু হয়েছে। পথের ধারে পড়ে থাকা প্রতিদিন অর্ধশতাধিক লোককে খাবার তুলে দেয়া হচ্ছে। শেষ রমজান অর্থাৎ চাঁদনী রাত পর্যন্ত এ কর্মসূচী চলবে বলে জানান তারা।
অপরদিকে দুরন্ত ফাউন্ডেশন কাঠালিয়া উপজেলা শাখার সদস্যরা কর্ম ও উপার্জনহীন ব্যক্তি/পরিবারের মাঝে খাদ্য সহায়তা দেয়ার প্রস্তুতি নিয়েছেন। এসব অসহায় পরিবারের সহায়তার জন্য তারা প্রাথমিকভাবে জরিপ করছেন। তহবিল তৈরী হলে তারা খাদ্যপণ্য উপহার সামগ্রী হিসেবে জরিপকৃত পরিবারের কাছে পৌছে দেবেন বলে জানান সাধারন সম্পাদক মাহদী মোরশেদ আসিফ। এধরনের মহতি উদ্যোগের সাধুবাদ জানিয়েছেন প্রশাসনিক কর্মকর্তা, রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ, জনপ্রতিনিধিগণ এবং সংশ্লিষ্ট দানশীল ব্যক্তিবৃন্দ। একর্মসূচীতে অংশ নিতে চাইলে দান করতে পারেন রক্তকনিকা ফাউন্ডেশনের জহির ০১৭২৯৩৪৮৬৬৩ (পার্সোনাল বিকাশ/নগদ) এবং দুরন্ত ফাউন্ডেশনের আসিফ ০১৭৮৯-০২৪৩৯৭ (পার্সোনাল বিকাশ/নগদ)।