উজিরপুর প্রতিনিধি: বরিশালের উজিরপুরে আদালতের নিষেধজ্ঞা ও পুলিশ প্রশসানের নির্দেশ উপেক্ষা করে বিরোধপূর্ন জমিতে বাড়ী নির্মান করছে এক প্রভাবশালী। আদালতের মামলা সূত্রে জানা যায়, শিকারপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা জাসিম হাওলাদারের সাথে স্থানীয় প্রভাবশালী সোহরাব হোসেন মীরা, সোহেল মীরা গংদের সাথে দীর্ঘদিন জমিজমা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। বিরোধপূর্ন জমিতে সোহেল মীরা বাড়ী র্নিমানের কাজ শুরু করলে জসিম হাওলাদার বাদী হয়ে আদালতে নিষেধজ্ঞা চেয়ে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং: ৮৮/২০২০। এরধারাবাহিকতায় বিজ্ঞ আদালত ১৩ জানুয়ারী পর্যন্ত ওই জমিতে সকল ধরনের উন্নয়নমূলক নির্মানাধীন কাজ করার নিষেধজ্ঞা জারী করে একটি নোটিশ জারী করেন। বুধবার ১৬ ডিসেম্বর সকালে বিবাদী সোহেল মীরা তাদের লোকজন নিয়ে বাড়ী কাজ করতে গেলে বাদী জসিম ও তার স্ত্রী রীনা খানম(৩৫) আদালতের নিষেধজ্ঞা নোটিশ দেখিয়ে কাজে বাধাঁ প্রদান করে। পরে পুলিশের বাধাঁয় কিছুদিন কাজ করা থেকে বিরতি থাকলেও পুনরায় ০৯ জানুয়ারী শনিবার বিবাদীরা সন্তাসীদের নিয়ে পুনরায় একইস্থানে বাড়ী নির্মানের কাজ শুরু করেন। এসময় বাদী জসিম কাজে বাঁধা দিলে বিবাদী সোহেল রাড়ী, জামাল গংরা ক্ষিপ্ত হয়ে বাদীকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে এবং হাইকমান্ডের নির্দেশ আছে তোরা কিছুই করতে পারবি না বলে হুমকিও দেয় বাদীকে। এব্যাপারে জসিম জানান, স্থানীয় বাসিন্দা তুহিন হাওলাদারের কাছ থেকে সাড়ে ৫ শতাংশ জমি ক্রয় করে দীর্ঘদিন বসবাস করে আসছি। সন্ত্রাসী ভূমিদস্যু সোহেল মীরা ও জামাল তাদের লোকজন নিয়ে আমার ওই জমিতে কিছুদিন পূর্বে ঘর নির্মান করাতে গেলে আমি ও আমার স্ত্রী বাধাঁ দিয়েছি এবং আদালতের নিষেধজ্ঞা আছে বলে তাদেরকে নোটিশ টি দেখায় এসময় উক্ত সন্ত্রাসীরা আমাকে মারধর করে ও আমার স্ত্রীর শ্লীলতাহানী ঘটায়। পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে কিছুদিন কাজ করা বন্ধ করে রাখে পুনরায় শনিবার লোকবল নিয়ে ঘড় নির্মানের কাজ শরু করেন। এসময় তারা আমাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে আমাকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেয়। এব্যাপারে বাদী সোহেলের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তার মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়।