বরিশালের উজিরপুরে গরু চোর চক্রের চার সদস্যকে গ্রেফতার করেছে বিমানবন্দর থানা পুলিশ। গত মঙ্গলবার (১লা নভেম্বর) বিমানবন্দর ও উজিরপুর থানা পুলিশের সহায়তায় চোর চক্রের চার সদস্যকে উজিরপুর উপজেলার দক্ষিণ শিকারপুর গ্রামের ৬নং ওয়ার্ডের মৃত হীরালাল শীলের ছেলে গরু ব্যবসায়ী গোপাল চন্দ্র শীল (৪২), ধামসর গ্রামের ৭নং ওয়ার্ডের মৃত আঃ খালেক বেপারীর ছেলে লিটন বেপারী(৪০), একই এলাকার মৃত বিভাস হালদারের ছেলে মিন্টু হালদার(৩৫)কে গ্রেফতার করে এয়ারপোর্ট থানায় নিয়ে যায়। গরু চোর চক্রের মূলহোতা ধামসর গ্রামের মোশারফ হাওলাদারের ছেলে মাসুম হাওলাদার ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছে।

বিমানবন্দর থানা সূত্রে জানা যায়, এয়ারপোর্ট থানাধীন মঙ্গলহাটা গ্রামে সরব আলী কাজীর ছেলে ইউনুস আলী কাজী ২টি গরু গত ২২ অক্টোবর রাতে গোয়ালঘর থেকে চুরি করে গরু দুটি নিয়ে যায়। বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুজি করতে থাকে। গত ৩১ অক্টোবর রাত ১১ টায় এয়ারপোর্ট থানার রামপট্টি এলকার দোয়ারিকা ব্রীজের পূর্ব পাশে ২জন ব্যক্তি গরু নিয়ে যাচ্ছে বলে খবর পায়। তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে গরুর মালিক ইউনুস আলী ছুটে গিয়ে গরু কোথায় পেয়েছে জিজ্ঞেস করলে তারা ক্রয় করেছে বলে জানায়। এ সময় বিমানবন্দর থানা পুলিশকে বিষয়টি অবহিত করলে থানা পুলিশ তাৎক্ষণিক ৩জন ব্যক্তিকে গরুসহ আটক করে থানায় নিয়ে যায়। এ সময় আটককৃত ব্যক্তিরা স্বীকারোক্তি অনুযায়ী উজিরপুর থানার ধামসর গ্রামের ৭নং ওয়ার্ডের মোশারেফ হাওলাদারের ছেলে মোঃ মাসুম হাওলাদার (৪২) এর ফার্মে আরো অনেক চোরাই গরু রয়েছে বলে তারা জানায়। এ ঘটনায় ১লা নভেম্বর বিমানবন্দর থানায় ৪জনকে আসামী করে ইউনুস আলী বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করে। গ্রেফতারকৃতদের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে। গরুর ফার্মের মালিক গরু চোর চক্রের মূল হোতা মাসুম হাওলাদার পলাতক রয়েছে। চোর চক্রকে গ্রেফতার করায় পুলিশকে সাধুবাদ জানায় এলাকাবাসী।
বিমানবন্দর থানার নবযোগদানকৃত অফিসার ইনচার্জ হেলাল উদ্দিন জানান, দীর্ঘদিন পর্যন্ত বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রচুর গরু চুরি করছে। অবশেষে এই চোরচক্রকে হাতেনাতে গ্রেফতার করা হয়। পলাতক চোরচক্রের মূলহোথা মাসুম হাওলাদারকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।