উজিরপুর টু সাতলা সড়কটি জুড়ে খনা খন্দে ভরা ও বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হয়ে চলা চলে অনুপযোগী হওয়ার উপক্রম হয়েছে। সড়কটিতে এখন সকল প্রকার যানবাহন চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। বরিশালের সৌন্দর্য পূর্ন শাপলা বিল ও হারতা বাজারের মৎস্য ব্যাবসায়ীদের চলাচলের একমাত্র জনগুরুত্বপূর্ন সড়কের বেহাল দশাটি যেন দেখার কেউ নেই । সরোজমিনে ঘুরে দেখাযায় সাতলা হারতা উজিরপুর সড়কটির করুন দশা সাধারন মানুষ থেকে শুরু করে সকল প্রকার যানবাহন জীবনের ঝুকি নিয়ে বাধ্য হয়ে চলছে সড়কটি দিয়ে। রাস্তাটি না হওয়ার পিছনে স্থানীয় সংসদের গাফেলতি রয়েছে বলে জানান স্থানীয় বাসিন্দারা। সাতলা থেকে উজিরপুর ৩২ কি: মি: সড়কের মধ্যে প্রায় ১৫ কি: মি: সড়কই খনা খন্দে’র কারনে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পরেছে। ওই সড়কটি দিয়ে প্রায় লক্ষাধিক মানুষ ও শতশত যানবাহন চলাচল করায় উপজেলার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন এ সড়কটি দ্রæত সংস্কারের দাবী করেছেন এলাকার জন সাধারন ও জনপ্রতিনিধিরা। স্থানীয় বাসিন্দা, রুবেল, কামরুল, সফিকসহ অনেকে জানিয়েছেন, উজিরপুর উপজেলার ৩ ইউনিয়নের লক্ষাধিক মানুষের চলাচলের প্রধান সড়ক হচ্ছে সাতলা- উজিরপুর সড়ক। ওই সড়কটির অধিকাংশ এলাকা জুড়ে ছোট বড় হাজারো খনা খন্দে সৃষ্টি হওয়ায় চরম দূর্ভোগের মধ্য জীবনের ঝুকি নিয়ে চলাচল করছে প্রায় সকল ধরনের যানবাহন। এই সড়কটি উজিরপুরের প্রানকেন্দ্র ও জনগুরুত্বপূর্ন হলেও স্থানীয় সংসদ সদস্য এই সড়কটি সংস্কার না করে গাফেলতি করছে। হারতা ইউপি চেয়ারম্যান ডা: হরেন রায় জানিয়েছেন, সাতলাÑহারতাÑউজিরপুর সড়কটির বেহাল দশার কারনে সাধারন মানুষ চরম ভোগান্তির মধ্যদিয়ে চলাচল করছে। বরিশাল জেলার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন মাৎস্য বাজার হারতায় প্রতিদিন সড়কটি দিয়ে মাৎস্য’র কাজে ব্যাবহারের জন্য বিভিন্ন ধরনের যানবাহন জীবনের ঝুকি নিয়ে চলাচল করছে প্রতিনিয়ত ঘটছে দূঘটনা সামনে বর্ষার মৌসুম সড়কটি মেরামত না করা হলে ৩ ইউনিয়নের মানুষের সাথে উজিরপুরের সরাসরি সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার আশংকা রয়েছে। সাতলা Ñবরিশাল রুটে চলাচলকারী বাসের চালক আবুল হাসান বলেন, সাতলা থেকে হারতা ও ওটরার চেরাগ আলী রাস্তার মাথা পর্যন্ত কমপক্ষে ৩শত থেকে ৪শত টির মতো গর্ত রয়েছে যা দিয়ে জীবনের ঝুকি নিয়ে গাড়ী চালাতে হচ্ছে। হারতা এলাকার অটো চালক হরোলাল বলেন, ভাঙ্গাচুড়া রাস্তার কারনে তাদের অটোতে যাত্রীরা উঠছে না সেকারনে আয় রোজগার কমে গেছে সড়কটি সংস্কার বা মেরামত করা না হলে বর্ষায় সড়কটি দিয়ে কোন গাড়ী চলতে পারবে না । উপজেলা প্রকৌশলী মীর মাহিদুল ইসলাম সাতলা’র সড়কের করুন অবস্থার কথা স্বীকার করে বলেন আপাতত ওটরার চেরাগ আলী থেকে ৭ কি:মি: সংস্কার করার স্টিমিট পাঠানো হয়েছে পাশ হয়ে আসলেই টেন্ডার দেয়া হবে। খনা খন্দ বাকী সড়কের ও স্টিমিট পাঠানো হবে পর্যক্রমে। পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামলীগের সাধারন সম্পাদক মো: গিয়াস উদ্দিন বলেন, উজিরপুরের প্রানকেন্দ্র হলো উজিরপুর টু সাতলা সড়কটি । অতি দ্রæত এই সড়ক সংস্কার করা খুবই প্রয়োজন। বিষয়টি উর্দ্ধোতন কতৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। আশা করি দ্রæত ব্যবস্থা গ্রহন করবে স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়। উপজেলা চেয়ারম্যান চেয়ারম্যান আব্দুল মজিদ সিকদার বাচ্চু বলেন সাতলা’র সড়কটি বর্তমানে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পরেছে দ্রæত সড়কটি মেরামত প্রয়োজন। তিনি বিষয়টি উর্ধতন কতৃপক্ষকে জানিয়েছেন।