সুদের হারের সীমা, ঋণখেলাপি কমাতে ব্যাংক পর্ষদ গঠনে সংস্কার ও রিজার্ভ গণনায় আন্তর্জাতিক পদ্ধতি অনুসরণের ওপর জোর দিয়েছেন ঢাকায় সফররত আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) প্রতিনিধিদল। অন্যদিকে, কিছু ইস্যুতে দ্বিমত পোষণ করে ব্যাখ্যা উপস্থাপন করেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিনিধিরা। তবে, ঋণের সুদের হারের সীমানির্ধারণ, অভিন্ন একেচঞ্জ রেট, রিজার্ভ গণনা পদ্ধতি ও খেলাপি ঋণ কমাতে ব্যাংক পর্ষদ গঠনের আইনের সংস্কার প্রভৃতি পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়নে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।’

মঙ্গলবার (৮ নভেম্বর) কেন্দ্রীয় ব্যাংকে ঢাকায় সফররত আইএমএফ প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের আনুষ্ঠানিক শেষ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৈঠকে উভয়দলের প্রতিনিধিরা নিজেদের পক্ষে দরকষাকষি করেছেন।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে— এদিন সুদের হারের সীমা, ঋণখেলাপি কমাতে ব্যাংক পর্ষদ গঠনে সংস্কার ও রিজার্ভ গণনায় আন্তর্জাতিক পদ্ধতি অনুসরণের ওপর জোর দেন আইএমএফের সদস্যরা। তবে, বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিনিধিরা কিছু ইস্যুতে দ্বিমত পোষণ করে ব্যাখ্যা উপস্থাপন করেছেন। কিন্তু ঋণের সুদের হারের সীমা নির্ধারণ, অভিন্ন একেচঞ্জ রেট, রিজার্ভ গণনা পদ্ধতি ও খেলাপি ঋণ কমাতে ব্যাংক পর্ষদ গঠনের আইনের সংস্কার প্রভৃতি পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়ন প্রতিশ্রুতি দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, আইএমএফ প্রতিনিধিদল তার সদস্য দেশ হিসেবে বাংলাদেশের অর্থনীতির বিভিন্ন ইনডিকেটরস তদারকি করতে পারে। গত জুলাইতেও আইএমএফের একটি প্রতিনিধিদল এসেছিল। প্রতিনিধিদল পাঠিয়ে আইএমএফ নিয়মিত তদারকির ক্ষমতা রাখে। তাদের মূলকাজ ঋণ মঞ্জুর বা অনুমোদন দেওয়া নয়। তবে, প্রতিনিধিদলের প্রতিবেদন ভালো না হলে ঋণ পাওয়া নিয়ে জটিলতা দেখা যায়। এজন্য দলের প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশের চাওয়া সাড়ে চারশত কোটি (৪ দশমিক ৫ বিলিয়ন) ঋণের সিদ্ধান্ত নির্ভর করছে।

অপর একজন কর্মকর্তা জানান, ‘আইএমএফের সদস্য দেশের আর্থিক ইনডিকেটরস নিয়মিত তদারকি করে থাকে। কোনো দুর্বলতা থাকলে পরামর্শ দিয়ে থাকে। ডলার ও মূল্যস্ফীতিসহ কয়েকটি বিষয়ে বিশেষ সময় পার করছি আমরা। এ মুহূর্তে বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষে তাদের সব শর্ত মেনে নেওয়া সম্ভব হবে না। তবুও কিছু শর্ত প্রতিপালনে প্রতিশ্রুতি দিয়েছি। আর কিছু শর্ত প্রতিপালনের জন্য সুবিধাজনক সময় চেয়েছি। এর মধ্যে রয়েছে— সুদের হারের সীমা বাজারভিত্তিক করা, অভিন্ন একচেঞ্জ রেট ও ঋণখেলাপি কমাতে ব্যাংক পর্ষদ গঠনে সংস্কার এবং রিজার্ভ গণনায় আন্তর্জাতিক পদ্ধতি অনুসরণ করা।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র জিএম আবুল কালাম আজাদ বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদারের সঙ্গে অনুষ্ঠিত বৈঠকে আইএমএফ মিশনের প্রধান রাহুল আনন্দের নেতৃত্বাধীন প্রতিনিধিদলের সদস্যরা মিশনের প্রাপ্ত তথ্য নিয়ে কথা বলেছে। আলোচনা ফলপ্রসূ হয়েছে।