বরিশালের উজিরপুরে হারতা ইউনিয়নের জামবাড়ী গ্রামে শারদীয় দুর্গাপূজা দেখতে না নিয়ে যাওয়ায় স্বামীর ওপর অভিমান করে স্ত্রীর আত্মহত্যা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল বুধবার রাতে এ ঘটনা ঘটে।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে উজিরপুর থানার পুলিশ গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে পাঠায়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, হারতা ইউনিয়নের নাথারকান্দি গ্রামের রঞ্জন পাণ্ডের মেয়ে পুতুল পাণ্ডের(২১) সঙ্গে জামবাড়ী এলাকার দিনমজুর বুদ্ধিশ্বর বিক্রমের (৩০) চার বছর আগে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। তাদের সংসারে তিন বছরের একটি শিশুকন্যা রয়েছে। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় স্ত্রী পুতুল পূজা দেখতে নিয়ে যাওয়ার জন্য স্বামী বুদ্ধিশ্বর বিক্রমের কাছে আবদার করেন। তখন টাকা না থাকায় অপারগতা প্রকাশ করেন বুদ্ধিশ্বর। কিন্তু গতকাল বুধবার স্বামী ঘুরতে নিতে চাইলে স্ত্রী পুতুল জানান, তিনি যাবেন না এবং তিন বছরের শিশুকন্যাকে নিয়ে ঘুরতে যেতে চাইলে স্বামীকে বাধা দেন। এ সময় দুজনের মধ্যে বাগ্‌বিতণ্ডা হয়। ওই দিন রাত সাড়ে ১০টায় স্বামী বুদ্ধিশ্বর ঘরে ঢুকে স্ত্রীকে অচেতন ও মুখে ফেনা দেখতে পেয়ে একজন পল্লী চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়ার পর তাঁর মৃত্যু হয়। ওসি তদন্ত মমিন উদ্দিন জানান, লাশ উদ্ধার করে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য প্রেরন করা হয়েছে। লাশের কোথাও আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে আত্মহত্যা। তবে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পরে বলতে পারবো হত্যা নাকি আত্মহত্যা।
উজিরপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ আলী আর্শাদ জানান, এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করা হয়েছে।