ঢাকা : বাজারে বন্ধ হচ্ছে খোলা তেল বিক্রি। এর আগে কয়েকবার এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হলে এবার বিষয়টি নিয়ে কঠোর অবস্থানে সরকার।

সিদ্ধান্ত অনুসারে আগামী ৩১ জুলাই থেকে খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি বন্ধ হচ্ছে। খোলা পাম অয়েল বিক্রি বন্ধ হবে ৩১ ডিসেম্বর থেকে। বাজারে প্যাকেটজাত প্রক্রিয়া ব্যতীত এসব তেল পাওয়া যাবে না।
খোলা তেলে ভেজাল মেশানো সহজ। তা ছাড়া কোন পর্যায়ে সয়াবিন ও পাম অয়েলে ভেজাল মিশ্রিত হচ্ছে, তা নির্দিষ্ট করাও কঠিন। এসব বিষয় মাথায় রেখেই খোলা তেল বিক্রি বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

শিল্প মন্ত্রণালয়ের পরিকল্পনা উইং উপ-সচিব হারুন অর রশিদ এ ব্যাপারে বলেন, সরকার এ আগেও তিন দফা খোলা তেল বিক্রি বন্ধে সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়নি। এবার আর সে পথে যেতে চায় না শিল্প মন্ত্রণালয়।

তিনি জানান, পাউচ প্যাকেটজাত তেল বাজারে থাকবে। তবে, ২৫০ মিলিলিটার থেকে ২০-৩০ লিটার পর্যন্ত তেল বিক্রি করতে হবে জারে করে। খোলা তেল বিক্রির সময় জুলাই মাস পর্যন্ত। এ ক্ষেত্রে স্বল্প মূল্যবৃদ্ধি হতে পারে বলেও জানান।

একটি সূত্র মারফত জানা গেছে, খোলা তেল বিক্রি বন্ধ হলে ফুড গ্রেড বোতল, প্লাস্টিক ফয়েল, পাউচ প্যাকে বাজারজাত হতে সয়াবিন ও পাম অয়েল। শিল্প মন্ত্রণালয় এ ব্যাপারে উৎপাদক পরিবেশক পর্যায়ে নির্দেশনা দিয়েছে।

মূল্যবৃদ্ধির ব্যাপারে সূত্রটি জানায়, খোলা তেল বিক্রি বন্ধ হয়ে গেলে প্যাকটজাত ২-৩ শতাংশ, সর্বোচ্চ ৪ শতাংশ পর্যন্ত তেলের মূল্যবৃদ্ধি পেতে পারে। নিম্ন আয়ের মানুষের কেনার সুবিধার্থে ছোট ছোট প্যাকেটে বিক্রির ব্যবস্থা করতেও নির্দেশ দিয়েছে শিল্প মন্ত্রণালয়।

এর আগে ৩১ মের পর থেকে খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি করা যাবে না বলে সিদ্ধান্ত নেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। পাম তেলের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্তই নির্ধারিত ছিল।