বরিশাল জেনারেল হাসপাতালকে ২৫০ শয্যায় রূপ দেওয়া হচ্ছে। এ লক্ষে প্রথম পর্যায়ে শিগগিরই শুরু হবে ২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে বহুতল ভবনের কাজ, যার জন্য ইতোমধ্যে গণপূর্ত বিভাগ থেকে দরপত্র আহ্বান সম্পন্ন করেছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে মঙ্গলবার (৭ সেপ্টেম্বর) বরিশাল গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী জেড়াল্ড অলিভার গুডা বলেন, ‘জেনারেল হাসপাতালের জন্য ১২তলা বিশিষ্ট নতুন ভবনের অনুমোদন হয়েছে। তবে প্রথমে দোতলা ভবন নির্মিত হবে। এই কাজে ব্যয় ধরা হয়েছে ২৫ কোটি টাকা। পর্যায়ক্রমে ১২তলা ভবনের কাজ সহ অন্যান্য কাজ সম্পন্ন করা হবে। এ লক্ষে ইতোমধ্যেই দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর দরপত্র খোলার তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।’

এদিকে জেলা সিভিল সার্জন ডা. মনোয়ার হোসেন বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরেই বরিশালবাসীর দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ১০০ শয্যার জেনারেল হাসপাতালকে ২৫০ শয্যায় রূপান্তরে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে আবেদন নিবেদন চলছিল। কিন্তু কোনোভাবেই অনুমোদন মিলছিল না। যার কারণে এ বিষয়ে মাঝে মধ্যে তাকে স্বশরীরে মন্ত্রণালয়ে গিয়েও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে একাধিক বৈঠকও করতে হয়েছে। অবশেষে দীর্ঘ অপেক্ষার পরে জেনারেল হাসপাতালে রোগীর চাপের বিষয়টি তারা বুঝতে পেরে এই অনুমোদন দেন।

এর মধ্য দিয়ে বরিশালবাসীর দীর্ঘদিনের লালিত একটি স্বপ্ন বাস্তবায়ন হলো।

সিভিল সার্জন আরও বলেন, ‘হাসপাতালটিতে এখন প্রয়োজন হবে অবকাঠামো এবং জনবল। মন্ত্রণালয় থেকে ধাপে ধাপে জনবল নিয়োগ করার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। তবে হাসপাতাল ক্যাম্পাসে বহুতল ভবন নির্মাণের পরই ২৫০ বেডের কার্যক্রম শুরু হবে। হাসপাতাল ক্যাম্পাসের ভেতরে থাকা ৬টি পুরনো ভবন ভেঙে সেখানেই নির্মিত হবে এই বহুতল ভবন।’

প্রসঙ্গত, ২০ শয্যা নিয়ে ১৯১২ সালে বরিশাল জেনারেল হাসপাতালের যাত্রা শুরু হয়। এরপর নব্বইয়ের দশকে ৮০ শয্যা এবং পরে ডায়রিয়ার ২০ শয্যা নিয়ে ১০০ শয্যায় রূপান্তরিত হয় হাসপাতালটি।