ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে শাশুড়িকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তার মেয়ে জামাইয়ের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় নিহতের ছেলে জীবন হোসেন বাদি হয়ে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করলে অভিযুক্ত মোজাম্মেল হককে (২৮) আটক করে পুলিশ।

শুক্রবার (১১ নভেম্বর) রাতে মোজাম্মেলকে আটক করা হয়।

এর আগে, এদিন সকালে উপজেলার আঠারবাড়ি ইউনিয়নের মধুপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতের নাম ইয়াসমিন আক্তার (৫৫)। তিনি কিশোরগঞ্জ জেলার তাড়াইল উপজেলার আড়াইউড়া গ্রামের বাসিন্দা আবদুল জব্বারের স্ত্রী।

জানা গেছে, কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে শাশুড়িকে ধাক্কা দেয় মেয়ে জামাই মোজাম্মেল। এতে শাশুড়ি ইয়াসমিন পাশের দেয়ালে ছিটকে পড়ে মাথায় মারাত্মক আঘাত পেয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। পরে তাকে দ্রুত উদ্ধার করে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পীরজাদা মোস্তাছিনুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, প্রায় ৩ বছর আগে মোজাম্মেল হকের সঙ্গে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় পাশ্ববর্তী কিশোরগঞ্জ জেলার তাড়াইল উপজেলার আড়াইউড়া গ্রামের আবদুল জব্বারের মেয়ে মিতু আক্তারের (২২)। কিন্তু সম্প্রতি মিতু তার বাবার বাড়ি যেতে চাইলে নিষেধ করে স্বামী মোজাম্মেল। এ খবর পেয়ে মেয়েকে আনতে যান ভুক্তভোগী।

এরপর শুক্রবার সকালে মিতু তার মায়ের সঙ্গে বাবার বাড়ি যেতে চাইলে মোজাম্মেল বাধা দেয়। এ নিয়ে বাগবিতণ্ডার এক পর্যায়ে শাশুড়িকে ধাক্কা দেয় জামাতা মোজাম্মেল। এতেই ঘটে দুর্ঘটনা।