নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলায় ‘বাবা-মাকে মারধর করে বেঁধে রেখে’ মেয়েকে দলবেঁধে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় হামলাকারীদের বিরুদ্ধে ভুক্তভোগীর বাড়িতে ভাঙচুর ও লুটপাটেরও অভিযোগ রয়েছে। পরে ৯৯৯ এ ফোন পেয়ে তাদের উদ্ধার করে বলে পুলিশ জানিয়েছে। রোববার রাতে উপজেলার পশ্চিম চর মজিদ আশ্রয়ণ প্রকল্প এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ওই কিশোরী ও তার মা-বাবাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মেয়েটির পরিবারের সদস্যদের অভিযোগ, স্থানীয় একটি বাহিনীর ২০-২৫ জন লোক রোববার রাত ১১টার দিকে তাদের বসতবাড়িতে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাট চালায়। এ সময় গৃহকর্তা ও তার স্ত্রীকে ঘর থেকে বের করে বেদম মারধর করে বেঁধে রাখে তারা। এক পর্যায়ে ঘরে থাকা মেয়েকে দুইজন ধর্ষণ করে।


চরজব্বার থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জয়নাল আবেদিন জানান, রাতে ৯৯৯ নম্বরে ফোন পেয়ে চরজব্বার থানার পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ভুক্তভোগীদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সকালে ওই কিশোরী ও তার মাকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।
এ ঘটনায় ভুক্তভোগী পরিবারকে লিখিত অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে; হামলাকারীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে, বলেন জয়নাল।

নোয়াখালী জেনালের হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) সৈয়দ মহিউদ্দিন আবদুল আজিম জানান, ভুক্তভোগী কিশোরীর স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।